শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
ময়মনসিংহে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, শাশুড়ি গ্রেফতার আ’লীগ ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৩৫ পল্টনে ভাস্কর্যবিরোধী মিছিলের চেষ্টা, পুলিশের লাঠিচার্জে পণ্ড রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের সিদ্ধান্তে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাশ্রয়ী মূল্যে সবার জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করুন: বিশ্বনেতাদের প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী ছেলের কাঁধে লাঙল দিয়ে চাষ, কৃষক পেলেন পাওয়ার টিলার ৪১ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে সাইকেল পেল ১৮ কিশোর মেহেরপুরে মেয়র কাপ ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট খেলার উদ্বোধন সেলফি তুলতে গিয়ে ভাইয়ের, বাঁচাতে গিয়ে বোনের মৃত্যু বাগেরহাট স্ত্রীর ওপর রেগে ঘরে আগুন, নেভাল ফায়ার সার্ভিস

জাকির বিশ্বাসের উদ্যোগে ওরা ৭১ জন এখন মাবনতার ফেরীওয়ালা

Reporter Name / ৯৭ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মালয়েশিয়া প্রবাসী নাইমুর রহমানের পিতা মাতা দুইজনই ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ায় দেশে ফিরে আসে নাইমুর। দেশে আসার পরপরই তিনিও একই রোগে আক্রান্ত হন। প্রবাসে উর্পাজনের অর্জিত অর্থ পিতা ও মাতার চিকিৎসা করিয়ে শেষ করে নিজের বেলায় পুরোপুরি নিঃস্ব হয়ে পড়েন তিনি। অর্থ অভাবে চিকিৎসা করাতে না পেরে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর প্রহর গুনতে থাকেন। এমন সময় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন চুয়াডাঙ্গা সদরের তিতুদহ ইউনিয়নের স্কুল শিক্ষক জাকির বিশ্বাস। তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নাইমুরের চিকিৎসার জন্য মানবিক সাহায্যের আবেদন জানিয়ে পোস্ট করেন। সাড়া পান বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের কাছ থেকে।

নাইমুরের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন জনের পাঠানো ৭০ হাজার ৫০ টাকা তুলে দেন তার হাতে। একই ইউনিয়নের হুলিয়ামারী গ্রামের মানোয়ার হোসেন দীর্ঘদিন যাবত পেটের পীড়ায় ভুলছিলেন। অর্থভাবে চিকিৎসা করাতে না পেরে নিদারুণ কষ্টে দিনাপাত করছিলো। মনোয়ার হোসেনের হাতেও তুলে দেয় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। এভাবেই নিজ গ্রাম কিংবা আশেপাশের এলাকার অসহায় দুঃস্থ মানুষের চিকিৎসা সেবার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ সহযোগিতা করে আসছেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহ ইউনিয়নের স্কুল শিক্ষক জাকির বিশ্বাস এর নেত্বতে গড়ে ওঠা আমরা মানুষের জন্য সংগঠন। এ পযন্ত প্রায় ২০ জন অসুস্থ মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন এই সংগঠনের সদস্যরা। তুলে দিয়েছেন নগদ ১১ লক্ষ ৬৩ হাজার ৬০২ টাকা। যান্ত্রিকতার এই যুগে যখন মানুষ শুধুই আন্তক্রেতিক হয়ে উঠছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক,টুইটার,মুঠোফোন যখন মানুষের কর্মময় জীবনে অশুভ শনি টেনে আনছেন ঠিক তখনই চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহ ইউনিয়নের স্কুল শিক্ষক জাকির বিশ্বাস ফেসবুকে নিজস্ব একটা প্লাটফর্ম তৈরী করে এলাকার অসহায়-দুস্থ মানুষের পাশে দারিয়েছেন। গড়ে তুলেছেন আমরা মানুষের জন্য সংগঠন।

বর্তমানে এই সংগঠনের সদস্য সংখ্যা ৭১জন। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ জাকির বিশ্বাসের গড়ে তোলা সংগঠনে সেচ্ছাসেবী হয়ে কাজ করছেন। নিজেদের পকেটের অর্থ নিঃস্বার্থভাবে তুলে দিচ্ছেন অসুস্থ মানুষের চিকিৎসা সেবায়। হাত পাতছেন শুভাঙ্কাখীদের কাছে। স্কুল শিক্ষক জাকির বিশ্বাস সময়ের সমীকরনকে বলেন, আমার একমাত্র মেয়ে জাকিয়া (৮) দীর্ঘ ২০১৬ সালে ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ছিলো। মুত্যুর মুখ থেকে সৃষ্টিকর্তা আমার মেয়েকে ফিরিয়ে দিয়েছেন। বর্তমানে তার চিকিৎসা চলছে। চিকিৎসকরা প্রথম দিকে আশা ছেড়ে দিলেও বর্তমানে জাকিয়া এখন অনেকেটাই সুস্থ। মুলত মেয়েকে নিয়ে নিজের কষ্টগাধা কথাগুলো ফেসবুকে শেয়ার করার পর থেকেই মনে হলো এলাকার দুস্থ অসুস্থ মানুষের জন্য কিছু করার। সেই থেকেই শুরু। প্রথম দিকে একা শুরু করলেও পরে গ্রাম্যের বাল্য বন্ধু গোলাম রসুল, শিক্ষক জিয়াউর রহমান সহ অনেকেই গিয়ে আসে। ৩জন থেকে ১২জন আর ১২ জন থেকে বর্তমানে আমাদের এই সংগঠনের সদস্য সংখ্যা ৭১জন। আমরা মুলত, এলাকার গবীর অসহায় দুস্থ মানুষদের অসহায়ত্বের চিত্র ফেসবুকে আমাদের নিজ নিজ আইডি থেকে পোস্ট করে সর্বস্তরের মানুষের কাছে সাহায্যের আবেদন জানায়। সেখান থেকে প্রাপ্ত পুরো অর্থ যার জন্য পোস্ট করা হয় তার হাতে তুলে দিই।

এবিষয়ে কথা হয়, বড়শলুয়া নিউ মডেল ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক, মাহবুবুর রহমান রিপন এর সাথে, তিনি সমীকরণকে বলেন, জাকির বিশ্বাসের মেয়ে ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত। দীর্ঘদিন যাবত সে নিজেই মানবেতন জীবন-যাবন করছে। সেই অবস্থা থেকেই সে যেভাবে অসহায় অসুস্থ মানুষের পাশে দাড়াচ্ছে এবং ফেসবুককে আর্তমানবতার সেবায় কাজে লাগচ্ছে, সেটা আমাদের সমাজে বিরল। তিনি সকলকে জাকির বিশ্বাসের মত করেই অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাড়ানোর আহ্বান জানান। তিতুদহ বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার অটিষ্টিক ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, জামাল উদ্দীন বলেন, অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য যে নিজের প্রচুর অর্থ থাকার প্রয়োজন পড়ে না, জাকির বিশ্বাস তার জলজ্যান্ত প্রমান। তিতুদহ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব, জিয়াউর রহমান, জাকির বিশ্বাসের কাজের ভূষীয় প্রশংসা করে বলেন, আমাদের দেশে এধরনের কাজ করার মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে বাংলাদেশে একটি মানুষও বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে না। এভাবেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহার করে মাবনতার সবায় নিয়োজিত হতে পেরে একদিন জাকির বিশ্বাস ও তার সহযোগিরা এলাকায় পরিচিত হয়েছেন মানবতার ফেরীওয়ালা হিসাবে। এই সংগঠনের সদস্যরা একই ভাবে তিতুদহ হাফিজিয়া মাদ্রাসার উন্নয়নে ফেসবুকে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে সংগ্রহ করা চার লক্ষ ১০ হাজার বায়ান্ন টাকা অনুদান দিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর