শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দর্শনা থানা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি), মাদক বিরোধী অভিযানে ছয়শত পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার সহ আটক- ১ মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন রংপুর বিভাগের মিলনমেলা-২০২১ এক সময় তারকা সংকট দেখা দিলে এদেশে কাজ করতে এসেছেন মুনমুন সেন, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তসহ আরও অনেক নায়িকারা চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পাখি ভ্যান উল্টে নিহত ১ আহত ২ মণিরামপুর থানা পুলিশের অভিযানে ১২ জন ওয়ারেন্ট ভূক্ত আসামি ও ১৫ পিচ মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট সহ একজন আটক চলচ্চিত্রশিল্প কোনো সংকটই কাটিয়ে উঠতে পারছে না মোরেলগঞ্জে ঘেরের ভেড়িতে করলা চাষে লাভবান কৃষকের মুখে মিষ্টি হাসি আমি যে তোর — আলমডাঙ্গায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন।যে কোন সময়ের চেয়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল

নারীর দেহে অবাঞ্ছিত লোম, চিকিৎসা

অনলাইন ডেস্ক / ৫০ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

নারীর শরীরে অবাঞ্ছিত লোমের সমস্যা হতে পারে। অনিয়মিত মাসিক, স্থূলতা আর শরীরের বিভিন্ন স্থানে অবাঞ্ছিত লোম বেড়ে যাওয়ার সমস্যা নিয়ে অনেকই চিকিৎসকের কাছে আসেন।

নারীর ঠোঁটের ওপর, চিবুক, বুক, পেট বা পিঠে তুলনামূলক মোটা, কালো কখনও বা একটু ঘন লোম দেখা দেয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায়– এই অবাঞ্ছিত লোম বৃদ্ধিকে ‘হারসুটিজম’ বলা হয়।

যেভাবে অবাঞ্ছিত লোম তৈরি হয়

মেয়েদের শরীরে স্বাভাবিকভাবে এন্ড্রোজেন বা পুরুষ হরমোনের পরিমাণ খুব অল্প। কিন্তু কখনও ডিম্বাশয় বা এডরেনাল গ্রন্থি থেকে এই এন্ড্রোজেন বেশি পরিমাণে তৈরি হলে বা এন্ড্রোজেনের অধিক কার্যকারিতার কারণে এই ‘হারসুটিজম’ দেখা দিতে পারে।

অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার কারণ

পলিসিস্টিক ওভারি রোগীদের মেটাবলিক ও হরমোনজনিত আরও কিছু সমস্যা হতে পারে। স্থূলতা বা ওজন বেশি থাকা, কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি থাকা। ইনসুলিন হরমোন ঠিকমতো কাজ করতে পারে না, তাই ইনসুলিনের আধিক্য থাকা সত্ত্বেও রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে।

 এ ছাড়া থাইরয়েড ও প্রোলেকটিন হরমোনের তারতম্য ও রক্তে ভিটামিন ডি ও ইনোসিটোল নামের উপাদান কমে যায়।

অনেক সময় পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরও অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার কারণ পাওয়া যায় না। অনেক সময় দেখা যায়, এ সমস্যা বংশগত হয়ে থাকে। আবার স্থূল মেয়েদের ক্ষেত্রে এ সমস্যা বেশি দেখা দেয়।

চিকিৎসা

অবাঞ্ছিত লোম সমস্যার সঙ্গে আরও অনেক সমস্যা জড়িয়ে থাকতে পারে। তাই কেবল লোমের সুরাহা করতে ব্যস্ত না থেকে একজন হরমোন বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হন। থাইরয়েড ও অ্যান্ড্রোজেন হরমোন, রক্তে চিনি, চর্বি, রক্তচাপ, ওভারি বা অ্যাড্রিনাল গ্রন্থির আলট্রাসনোগ্রাম ইত্যাদি পরীক্ষার দরকার হতে পারে।রোগ নির্ণয়ের পর উপসর্গ অনুযায়ী পুষ্টিবিদ, স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ, ত্বক বিশেষঞ্জের পরামর্শ নিতে হতে পারে।

১. নিয়মিত হাঁটা, ওজন কমানো, উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার পরিহার ও টেনশনমুক্ত জীবনযাপন করতে হবে।

২. যার এন্ড্রোজেন হরমোন বেশি আছে, তাদের সিপ্রোটেরন এসিটেট ও স্পাইরোনোলেকটন জাতীয় ওষুধ ভালো কাজ করবে।

৩. মেটফরমিন জাতীয় ওষুধ ইনসুলিনকে কাজ করতে সাহায্য করে ও ওজন কমায়।

৪. থাইরয়েড বা প্রোলেকটিন হরমোনের ওষুধ খেতে হতে পারে প্রয়োজনবোধে।

৫. ভিটামিন ডি ও ইনোসিটোলের ঘাটতি থাকলে তা পূরণ করতে হবে।

৬. সুষম খাবার, ব্যায়াম, সঠিক ওজন অর্জন করা এবং ধরে রাখা চিকিৎসার মূল ভিত্তি।

৭. ভিটামিন ডি ব্যবহারেও সুফল পাওয়া যায়।

৮. লোম কমানোর জন্য অন্যান্য চিকিৎসা, যেমন লেজার থেরাপি, মলম ইত্যাদি দেওয়া যেতে পারে।

৯. ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, চর্বির অস্বাভাবিকতা থাকলে তার চিকিৎসা করতে হবে। সময়মতো বন্ধ্যত্ব চিকিৎসা করা হলে সে ক্ষেত্রেও সুফল পাওয়া যায়।

লেখক: কনসালট্যান্ট, অবস গাইসি বিভাগ, বিআরবি হাসপাতাল 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর