শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
সীমান্তে চোরাকারবারিদের ফেলে যাওয়া ইলিশ এতিমখানায় বিতরণ সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ফয়েজ কুষ্টিয়ায় নচালক সেজে আসামিকে ধরলেন এসআই শিমুল চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে শাহাজাহান কবীর ও আলমডাঙ্গায় মীর মহিউদ্দিন সহ-৫২ পৌরসভায় ধানের শীষের মনোনয়ন পেলেন যারা গাংনীতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পোঁছেছে সরঞ্জাম, কাল ভোট মুজিবনগর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন গাংনীর সহগলপুরে কৃষকের তামাক কেটে দেওয়ার অভিযোগ সিলেটে আবাসিক হোটেল থেকে পাঁচ যুবতীসহ আটক ১৪ রাত পোহালেই শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচন, বিজিবি মোতায়েন জেলা গোয়েন্দা শাখা নরসিংদীর অভিযানে ইয়াবাসহ চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ২

বঙ্গবন্ধুর ১০ জানুয়ারির ভাষণে দেশ পরিচালনার সব রকম দিক-নির্দেশনা ছিল: প্রধানমন্ত্রী

Reporter Name / ৪৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে স্বাধীন দেশে ফিরে রেসকোর্সের ময়দানে দেয়া জাতির পিতার ভাষণে একটি স্বাধীন দেশ পরিচালনার সব রকম দিক-নির্দেশনা ছিল।তিনি বলেন, ঢাকায় এসেই জাতির পিতা রেসকোর্সের ময়দানে ছুটে যান। এরপর সেখানে যে ভাষণটি দেন, তাতে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র পরিচালনার সব রকম দিক নির্দেশনা ছিল। অথচ, হাতে কোনো কাগজ ছিল না, নিজে থেকেই বলেছিলেন।

রোববার জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংযুক্ত হয়ে সভায় অংশগ্রহণ করেন তিনি।শেখ হাসিনা বলেন, একজন মানুষ একটি জাতির প্রতি কতটা নিবেদিত হলে, মানুষকে কতখানি ভালবাসলে এমন আত্মত্যাগ করতে পারেন, তা জানতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীসহ আমাদের নতুন প্রজন্মের ৭ মার্চের ভাষণ এবং ১০ জানুয়ারির ভাষণ বারবার শোনা উচিত। তাহলেই রাজনীতি করার একটা প্রেরণা এবং দিক-নির্দেশনা সবাই পাবে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে মানুষের জন্য জাতির পিতা আজীবন ত্যাগ এবং সংগ্রামের মধ্য দিয়েঅতিবাহিত করেছেন, তার স্বাধীন দেশে সেই জনগণের মাঝেই তিনি ফিরে আসেন। ফিরে এসেই রেসকোর্সের ময়দানে সেই মানুষের কাছেই তিনি ছুটে গিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, পাকিস্তানি কারাগারে থেকে জাতির পিতার ৪০ পাউন্ড ওজন কমে যায়। তবু মুক্তি পেয়ে তিনি সেই জীর্ণশীর্ণ দেহ নিয়েই লন্ডন চলে যান। সেখানে প্রধানমন্ত্রী হিথের সঙ্গে বৈঠক করেন, সংবাদ সম্মেলন করেন এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। লন্ডন থেকে তিনি দিল্লি হয়ে দেশে ফেরেন এবং সেখানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এবং রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় এবং সেখানেও তিনি জনগণের সামনে বক্তৃতা দেন। এরপর ঢাকায় এসেই তিনি রেসকোর্সের ময়দানে ছুটে যান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেই ভাষণে বন্ধুপ্রতীম দেশ যারা সহযোগিতা করেছে, তাদের প্রতি যেমন কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন, তেমনি দেশের মানুষের প্রতি পাকিস্তানি বাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতনের কথাও তিনি তুলে ধরেছেন।তিনি বলেন, আমাদের একটাই চিন্তা, সেটা হলো যে জাতির জন্য আমাদের মহান নেতা জীবন দিয়ে গেছেন, সেই জাতির কল্যাণ করা, তাদের জীবন সুন্দর করা। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। দেশকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ থেকে মুক্ত রেখে উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলবো- জাতির পিতার এই প্রত্যাবর্তন দিবসে এটাই আমাদের প্রতিজ্ঞা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ জাতি বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে। এ জাতিকে যারা ব্যর্থ করতে চেয়েছিল আজকে তারাই ব্যর্থ। আজকে বাংলাদেশ স্বাধীন দেশ হিসেবে সারাবিশ্বে যে মর্যাদা পেয়েছে, তা ধরে রেখে আমরা বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব।বাঙালির চিরায়ত ইতিহাসের প্রসঙ্গ টেনে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, এ দেশের ভূমিপুত্র হিসেবে একমাত্র জাতির পিতাই প্রথম দেশের শাসনভার হাতে নিয়েছিলেন। তার আগে যারাই ক্ষমতায় ছিলেন, তাদের কারো জন্ম এদেশে ছিল না।

তিনি বলেন, জাতির পিতা ব্রিটিশ আমল থেকে চলে আসা শাসন ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন করে একে গণমুখী করার জন্যই দ্বিতীয় বিপ্লবের ডাক দেন। সেটা যদি করে যেতে পারতেন, তাহলে মাত্র ৫ বছরেই বাংলাদেশ ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে উঠতে পারতো। তাতে কোন সন্দেহ নেই। কারণ, আজকে দেশ পরিচালনা করতে গিয়ে দেখি সমস্ত কাজের ভিত্তিটাই তিনি তৈরি করে দিয়ে গেছেন। মাত্র সাড়ে ৩ বছরের শাসনামলে জাতির পিতা এত আইন, এত নীতিমালা কিভাবে করে যান, সেটা একটা বিস্ময় বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সভায় প্রারম্ভিক বক্তৃতা করেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এছাড়া দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, রমেশ চন্দ্র সেন, আব্দুল মতিন খসরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল এবং এস এম কামাল হোসেনসহ অন্যরা বক্তৃতা করেন।- বাস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর