শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:০৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
মোরেলগঞ্জে ঘেরের ভেড়িতে করলা চাষে লাভবান কৃষকের মুখে মিষ্টি হাসি আমি যে তোর — আলমডাঙ্গায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন।যে কোন সময়ের চেয়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল চুয়াডাঙ্গায় ‘জিনের বাদশা’ নিয়ে গেল দেড় লাখ টাকা সেই শাবনূরের সন্তানের দায়িত্ব নিলেন ইউএনও শাহাদাৎ হত্যা: তিনজনের যাবজ্জীবন চুয়াডাঙ্গায় পৃথক দুর্ঘটনায় শিশুসহ নিহত ২ চুয়াডাঙ্গা ভি. জে. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৭২ সালের এসএসসি ব্যাচের বন্ধু মিলনমেলা আসন্ন দামুড়হুদা সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে নির্বাচনী মতবিনিময় ও গণসংযোগ চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা আনসার-ভিডিপি’র জনসচেতনতামূলক কোভিড-১৯টিকা গ্রহণে উদ্বুদ্ধকরণ র‌্যালী ও আলোচনা সভা

চলে গেলেন ভাষা সৈনিক হযরত আলী

Reporter Name / ৭৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:০৭ অপরাহ্ন

টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের গোপালপুরে বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়া বায়ান্নর ভাষা সৈনিক ডা. হযরত আলী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে তিনি মারা যান। শনিবার সকাল নয়টার দিকে নবগ্রাম দাখিল মাদরাসা মাঠে তার জানাজা হওয়ার কথা। যারা মায়ের ভাষায় কথা বলার জন্য নিজেদের জীবন উৎসর্গ করতে বিন্দু মাত্র কার্পণ্য করেননি। বুকের তাজা রক্তে রাজপথ রাঙিয়ে দিয়ে বাংলা ভাষায় কথা বলার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছেন, তাদের একজন ছিলেন গোপালপুর উপজেলার নবগ্রামের মৃত রোস্তম আলীর ছেলে হযরত আলী। জীবদ্দশায় ভাষা সৈনিক হযরত আলী বলেছিলেন, ভাষা আন্দোলনের ঢেউ ঢাকা ছাড়িয়ে যখন প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে, তখন সারা দেশের ন্যায় গোপালপুর উপজেলায় মিটিং করে গান গেয়ে ছাত্র-জনতাকে সংগঠিত করা হয়। সে সময় হযরত আলী স্থানীয় সূতী ভি এম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র ও ক্লাস ক্যাপ্টেন ছিলেন। যেদিন ১৪৪ ধারা জারি করা হয়, সেদিন একই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে মিছিল করতে গিয়ে তিনিসহ গ্রেফতার হন আব্দুর রহিম ও সহপাঠি মহেন্দ্র দেবনাথ। তাদের পাঠানো হয় ময়মনসিংহ কারাগারে। সেখানে ২৫ দিন কারাভোগের পর প্রেরণ করা হয় টাঙ্গাইল কারাগারে। সেখানে ৪ দিন কারা ভোগের পর জামিনে মুক্তি পান এ সাহসী ভাষা সৈনিক। ১৯৫৭ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করার পর তিনি ভর্তি হন রংপুরের কারমাইকেল কলেজে। ছাত্র অবস্থায় ১৯৫৮ সালে প্রয়োজনের তাগিদে তিনি শিক্ষকতা পেশায় যোগদান করেন। কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী সৈয়দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কিছু দিন শিক্ষকতা করে বদলী হয়ে আসেন হাদিরা বাঘেরঘাট স্কুলে। ১৯৬২ সালে শিক্ষকতা ছেড়ে চাকরি নেন স্বাস্থ্য বিভাগে। দীর্ঘ দিন চাকরি করার পর ১৯৯৮ সালে অবসর গ্রহণ করেন। ব্যক্তি জীবনে হযরত আলীর কোনো ভাই-বোন ছিলো না। তার এক ছেলে আশরাফুল আলম একজন কলেজ শিক্ষক। চার মেয়ে মেহেরুন্নেছা, সেলিনা, নাজমা ও লাকি আক্তার। ২০১০ সালে অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে গোপালপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ভাষা আন্দোলনে অবদান রাখার জন্য এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাকে ‘রাষ্ট্রীয় সম্মাননা ক্রেষ্ট’ প্রদান করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর