মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রীর পিএস পদে নিয়োগ পেলেন দুজন ভালোবেসে বিয়ে করে বিপাকে নবদম্পতি খুলনার স্কুলের গ্রিল কেটে চুরি হওয়া ২১টি ল্যাপটপ উদ্ধার, গ্রেফতার ৫ স্ত্রীর অধিকার পেতে প্রেমিকের বাড়িতে শিক্ষিকার অনশন সালাম না দিলেই মারধর, ছাত্রীদের ওড়না ধরে টান দিতো রবিউল অনলাইনে ভুয়া পণ্য বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার দুই প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় ‘ম্যুরাল’ উদ্বোধন পাইকগাছায় শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে ছাত্রলীগের বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি আলমডাঙ্গার শিক্ষক জামিরুল ইসলাম খান বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে তালবীজ রোপন করেছেন  চুয়াডাঙ্গায় আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক

পরীক্ষায় সহায়তার আশ্বাসে দৈহিক মেলামেশা, বিয়ের পর চাইলেন যৌতুক

Reporter Name / ৩২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টারঃ প্রথমে কলেজছাত্রীকে মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে সার্বিকভাবে সহায়তার আশ্বাস দেন প্রভাষক। ওই ছাত্রী তার আয়ত্তে চলে আসলে একপর্যায়ে প্রভাষক শুরু করেন দৈহিক মেলামেশা। পরে উপায়ন্তর না পেয়ে ওই কলেজছাত্রীকে বিয়ে করেন প্রভাষক। বিয়ের পর বের হয়ে আসে ওই প্রভাষকের আসল রূপ। কয়েকদিন না যেতেই দাবি করে বসেন মোটা অঙ্কের যৌতুক। এমন অভিযোগ উঠেছে ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের প্রভাষক মো. আল-আমিন মাঝির বিরুদ্ধে। ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজ থেকে ২০১৮ সালে এইচএসসি পাস করে ওই ছাত্রী। এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর কয়েক মাস আগে ক্লাস নেয়ার সুবাধে গণিত বিভাগের প্রভাষক মো. আল-আমিন মাঝি ওই ছাত্রীর ফোন নম্বর সংগ্রহ করে নিয়মিত যোগাযোগ শুরু করেন। এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হলে আল-আমিন ছাত্রীকে ফোন করে মহিলা কলেজে এনে বলেন, তুমি ভালো রেজাল্ট করেছো। তুমি মেডিকেলে ভর্তির পরীক্ষা দাও। আমি তোমাকে সব রকমের সহযোগিতা করব। সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে আল-আমিন প্রায়ই ওই ছাত্রীকে বরিশাল-ঝালকাঠির বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও মহিলা কলেজ সড়কের বাসায় নিয়ে দৈহিক মেলামেশা করেন। এক পর্যায়ে তারা বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন। কয়েক মাস যেতে না যেতেই ওই ছাত্রীকে যৌতুকের টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন তিনি। টাকা না দিলে বাবার বাড়ি থেকে আর নেয়া হবে না বলেও সাফ জানিয়ে দেন প্রভাষক আল আমিন মাঝি। ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের প্রভাষক মো. আল-আমিন মাঝির বিরুদ্ধে ছাত্রীকে বিয়ে করে যৌতুক দাবির মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক এইচএম ইমরানুর রহমান রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ আদেশ দেন। ওই ছাত্রীর মা ২০১৮ সালের ২০ সেপ্টেম্বর কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর খান ও অ্যাডিশনাল এসপি (সদর সার্কেল) মাহমুদ হাসানের কাছে অভিযোগ করেন এবং মামলা দায়েরের জন্য ঝালকাঠি জেলা ও দায়রা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তার কাছে এফিডেভিট করেন। তবে ওই সময় জেলা ও দায়রা জজ ছুটিতে থাকায় মামলা হয়নি। পরে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত আল-অমিন মাঝি নলছিটি উপজেলার রানাপাশা গ্রামের মো. তৈয়বুর রহমান মাঝির ছেলে। তিনি চার বছর আগে ঝালকাঠি মহিলা কলেজে যোগ দেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর