শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৫:০৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দামুড়হুদা থানা পুলিশের অভিযানে সিআর সাজাপ্রাপ্ত পলাতক ২ জন আটক দেশে একদিনে আরো ৩০ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৮৬ শারীরিক-মানসিক নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে স্বামীকে হত্যা করেন বিউটি লক্ষ্মীপুরে অটোরিকশা চোর চক্রের তিনজন আটক মায়ের কবরে শায়িত হলেন সাহারা খাতুন পাইকগাছায় পূজা উদযাপন পরিষদের বৃক্ষ রোপন কর্মসুচি ও আলোচনা সভা অনু‌ষ্ঠিত ফকিরহাটে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে নসিমন চালক নিহত দামুড়হুদার কুড়ুলগাছি গ্রাম থেকে দশম শ্রেণির দুই স্কুল ছাত্র গ্রেপ্তার, গ্রেপ্তারের পর বেরিয়ে এলো বাপ্পী ও শামীমের নানা কু-কীর্তি সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত জীবননগর থানা পুলিশের মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযানে ৪২ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই যুবক আটক

ভালোবাসার ইন্দোজাল

Reporter Name / ৫১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৫:০৭ অপরাহ্ন

ভালোবাসার ইন্দোজাল!!

কবি রিতুনুর /

বিশ বছর আগের কথা।
সখের বসতে ফরিদা সিকদারের
ধানমন্ডির বাসায় থেকে
একটি খরগোশ এনেছিলাম আমি
ফরিদা সিকদার আমাকে গিফট হিসেবে দিয়েছিলো খরগোশটি খুব হাবাগোবা স্বভাবের
সব সময় চুপচাপ আমার শোবার ঘরে
খাটের এক কোনে বসে থাকতো সে।
অল্প অল্প খেতো বেশি জালাতন করতো না।
বেশ কয়মাস এভাবেই চলছিলো,
খরগোশটার স্বাস্থ্যটাও খুব ভালো ছিলো।
ধবধবে সাদা গায়ের রং
খুবি কিউট ক্ষনে ক্ষনে বুকে জরিয়ে নিতাম।
খুব মায়া হতো, খরগোশটার জন্য।
পালনে সাম্রাগী মনে হতো নিজেকে
একদিন রাতের বেলা,
হঠাৎ খরগোশটা লাপাত্তা,
আমার রুমে সে কোথাও নেই।
কোথায় গেলো খুঁজতে লাগলাম তাকে।
অবশেষে ড্রোয়িং রুমে পেলাম তার দেখা।
সেই আমলে তিরিশ হাজার টাকা দামের নতুন সোফা কেটে ভিতরের নারকেলের
সোবা তুলোগুলো বাহির করে
তার ভিতরে ঢুকে বসে আছে সে, অবাক কান্ড।
মনটা খারাপ হয়ে গেলো আমার।
ওর বিদ্রোহ দেখে সাহেবও রেগে গেলো।
ভাবলাম আর রাখবোনা ঘরে খুব মন খারাপ লাগলো আমার মনে মনে ভাবলাম,
যেখান থেকে এনেছি দিয়ে আসবো।
পরের দিন বিকেলে ফরিদা সিকদারের বাসায়
রিক্সায় চড়ে গেলাম
এবং খুলে বললাম খরগোশের আচরণেরটা এবং আমার বিতৃষ্ণার কথা।
ফরিদা আপা বললো ওতো আমাকেও
জ্বলতো খুব আমি তাইতো তোমাকে দিয়েদিয়েছি আমি আর নেবোনা ওকে
তুমি পারলে ওকে সাথী দাও,
ঠিক হয়ে যাবে।
এই কথা শুনে আমি সোজা নীল খেতে গেলাম
আরেকটা খরগোশ চারশো টাকা দিয়ে কিনে বাসায় আনলাম।
তাকে পেয়ে মনে সুখ খুঁজে পেলো
আমার খরগোশটা।
দুজনে মিলে কয়েকবছর আমার বাসায় ছিলো।
কাটিয়েছে সুখে দুঃখ দুজনে আমার পাশে
খুব মনে পড়ে একজন আরেক জনকে
ছাড়া চলতো না মাঝে মাঝে গলায় জড়িয়ে ধরে
ঘুমাতো দুজনে।
আর কোনদিন সোফা কাটেনি আমার কোন ক্ষতি ও করেনি আমি রাগ করলে আমাকে খামচি কাটতো এসে সব বুঝতো।
পুরোপুরি সুখী ছিলো তারা দুজনে
ঝিগাতলা থেকে আসার সময় প্রফেসর আবুল খায়েরদের দিয়ে আসি কারন ওদের খুব চিনতো খরগোশ জোড়া।
ভালোবাসার ইন্দো জালে বন্দী হয়ে পড়েছিল দুজন জীবন সুখের ভেলায় ভাসতো খরগোশ জুটি খুটির মতোই এক হয়ে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর