বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতে গেল ৮০৫ টন ইলিশ যে কারণে মিন্নির মৃত্যুদণ্ড মোবাইলে প্রেম: গাইবান্ধায় এক মাসে হুট করেই ২৩ তরুণী উধাও ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি চুয়াডাঙ্গার আব্দুস সাক্তার জালিয়াতি করে জামিন,হাইকোর্টে জাল নথি : পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ গাংনীতে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উদযাপন মেহেরপুরে মাদক মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার মেহেরপুর জেলা পুলিশে কর্মরত আনসার সদস্যদের প্রত্যাবর্তন শেষ গাংনী পৌরসভায় ৫৫ কোটি টাকা ব্যায়ে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট কাজের উদ্বোধন মেহেরপুরে ধর্ষণের প্রতিবাধে মানববন্ধন ঝিনাইদহের মহেশপুরে ফেনসিডিল ও গাঁজা জব্দ করেছে ৫৮ বিজিবি

জীবন ঝুঁকিকে তুচ্ছ করে করোনার নমুনা সংগ্রহে ব্যস্ত কমলগঞ্জের করোনা যুদ্ধারা     

Reporter Name / ৯৫ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৩ অপরাহ্ন

এম এ কাদির চৌধুরী ফারহান: করোনায় বিরামহীন স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন সারাদেশের সংশ্লিষ্ট ডাক্তার, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা। সারাদেশের ন্যায় কমলগঞ্জেও থেমে নেই স্বাস্থ্যকর্মীদের কর্মযজ্ঞ। দিন-রাত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনার নমুনা সংগ্রহ ও আক্রান্তদের নিয়মিত স্বাস্থ্য সেবা দিচ্ছেন তারা। বৃহস্পতিবার ৫ জুন ৪টি সহ কমলগঞ্জ উপজেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট-৩৬১টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। করোনার সন্দেহজনক উপসর্গ দেখা দিলেই কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিম নমুনা সংগ্রহ করতে ছুটে যান। ঈদসহ অনেক আনন্দকে পাশ কাটিয়ে দিনের পর দিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। পরিবার পরিজনের মায়া ত্যাগ করে এই ক্রাইসিস মুহূর্তে তাঁরা মানবতার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা মনে রাখবে চিরকাল কমলগঞ্জবাসী। তাদের ত্যাগ ও অবদান নিঃসন্দেহে অভিবাদন পাওয়ার যোগ্য। করোনা কালে করোনাযুদ্ধের অগ্রসৈনিক এই স্বাস্থ্যকর্মীরা। কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতার ডাঃ মাহবুবুল আলম ভূইয়ার নির্দেশনায় নমুনাগুলো সংগ্রহ করা হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নমুনা কালেকশন টিমের সদস্যরা হলেন- ডাঃ সৌমিত্র সিনহা (মেডিকেল অফিসার), সুর্নিমল কুমার সিংহ (মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট), নরুল হক(ড্রাইভার), আশরাফুল আলম (ই.পি.আই)। আলাপকালে করোনা যুদ্ধারা জানান, আমরা করোনা রুগি শনাক্তকরণে নমুনা সংগ্রহ করতে প্রথমেই নিজের ও রুগির উভয়েরই সেইটি নিশ্চিত করি। এর পরও জিবনের ঝুঁকি থেকেই যায়। সেই ঝুঁকি তুচ্ছ মনে হয় মানুষের কষ্ট দেখে। আবার অনেক সময় অপরাধবোধও হয় মানুষের আড়চোখে তাকানো দেখে। তারা আরো জানান, সমাজের অনেকেই করোনা রুগীদের পাশাপাশি আমাদেরকেও খারাপ চোখে দেখে, খারাপ মন্তব্য করে। তবুও পরিবারের সবাইকে নিরাপদ রেখে সামাজিক দায়বদ্ধতা এবং নিজের কর্মক্ষেত্রকে সম্মান করে কাজ করে যাচ্ছি। তারা সবাইকে অনুরোধ করেন বলেন, করোনায় সংক্রমিত হওয়া কোন অপরাধ নয়। করোনা পজেটিভ মানেই মৃত্যু নয়। করোনা রুগীর প্রতি সদয় মনোভাব দেখান, সামাজিক সচেতনতাই পারে করোনা ভয়কে জয় করতে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর