সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কর্তব্যরত অবস্থায় আত্মোৎসর্গকারী পুলিশ সদস্যদের প্রতি চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের শ্রদ্ধা নিবেদন চার পথ নিরাপদের দাবিতে সুনামগঞ্জে সেভ দ্য রোড-এর সমাবেশ কর্তব্যের তরে দিয়ে গেলে যারা, আত্মবলিদান প্রতিক্ষণে স্মরণে রাখিব ধরি তোমাদের সম্মানঃ- ঝিনাইদহে মাদ্রাসা শিক্ষকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারঃ চুয়াডাঙ্গার মা নার্সিংহোমে সিজারিয়ানে পর সদর হাসপাতালে নবজাতকের মৃত্যু মুজিবনগরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা রমজান আলীর দাফন মুজিবনগরে রাস্তার রাজা মাটিবাহী ট্রাক্টর,সড়ক যেন মরনফাঁদ গাংনীতে মুক্তিযোদ্ধাদের হয়রানী বন্ধসহ ১০ দফা দাবীতে মানববন্ধন গাংনীর চেংগাড়া গ্রামে ঐতিহ্যবাহী গ্রামীন খেলাধুলা অনুষ্ঠিত মেহেরপুরে মিনি নাইট ক্রিকেট টুর্নামেন্ট’র উদ্বোধন

রাত বারোটার পর এশার নামাজ পড়া যাবে কি?

Reporter Name / ১১৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৭:২৯ অপরাহ্ন

ধর্ম ও জীবন ডেস্কঃ অনেকে বলে থাকেন এশার নামাজের ওয়াক্ত রাত ১২ টা
প্রর্যন্ত। আসলে কি তাই ? রাতের ভেতর চারটি প্রহর থাকে। ধরে নিন, চার ঘণ্টা করে। প্রথম প্রহরের এশা পড়া উত্তম। দ্বিতীয় প্রহর পার হয়ে গেলে মাকরূহ ওয়াক্ত এসে যায়। তবে এমনিতে কোনো উজর বশতঃ ফজর হওয়ার আগ পর্যন্তই
এশা পড়া যায়। এশার নামাজের আগে ঘুমানো মাকরূহ অধিক রাত্রি জাগরণ না করে দ্রুত ঘুমিয়ে পড়া মোস্তাহাব। হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এশার নামাজের পূর্বে ঘুমানো এবং নামাজের পর অহেতুক গল্প-গুজব
করাকে খুব অপছন্দ করতেন। কিন্তু ভালো ও নেক কাজের জন্য এশার নামাজের পর জাগ্রত থাকাতে কোনো ক্ষতি নেই। যেমন মেহমানের সঙ্গে কথা বলা, জ্ঞানার্জন সম্পর্কে আলোচনা করা কিংবা পরিবারকে সময় দেওয়া ইত্যাদি। মোটকথা, যে জাগ্রত থাকা কোনো ক্ষতির কারণ হবে না- যেমন ফজরের নামাজ নষ্ট হয়ে যাওয়া; সে জাগ্রত থাকাতে কোনো ক্ষতি নেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর