শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:০৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দর্শনা থানা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি), মাদক বিরোধী অভিযানে ছয়শত পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার সহ আটক- ১ মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন রংপুর বিভাগের মিলনমেলা-২০২১ এক সময় তারকা সংকট দেখা দিলে এদেশে কাজ করতে এসেছেন মুনমুন সেন, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তসহ আরও অনেক নায়িকারা চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পাখি ভ্যান উল্টে নিহত ১ আহত ২ মণিরামপুর থানা পুলিশের অভিযানে ১২ জন ওয়ারেন্ট ভূক্ত আসামি ও ১৫ পিচ মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট সহ একজন আটক চলচ্চিত্রশিল্প কোনো সংকটই কাটিয়ে উঠতে পারছে না মোরেলগঞ্জে ঘেরের ভেড়িতে করলা চাষে লাভবান কৃষকের মুখে মিষ্টি হাসি আমি যে তোর — আলমডাঙ্গায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন।যে কোন সময়ের চেয়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে করোনা  রমজানেও কর্মহীন দর্জি পরিবার সরকারি সহায়তা চায়

Reporter Name / ১০০ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:০৯ অপরাহ্ন

শেখ সাইফুল ইসলাম কবির.সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার,বাগেরহাট:দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাগেরহাটসহ ১০ জেলার করোনা রমজানেও কর্মহীন হাজার হাজার দর্জি পরিবার চরম অসহায়।দর্জি পরিবার সরকারি সহায়তা চায়।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জসহ কয়েকটি স্থানে টেইলার্সের দোকানে কাজ করেন এমন কয়েকজনের সঙ্গে কথা হয়। তারা জানান, কাজ না থাকায় এ দুর্যোগে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।এতে বিপাকে পড়েছেন স্বল্প আয়ের মানুষ। বিপাকে পড়েছেন কাপড় সেলাইয়ের কারিগররা।

বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জের নাসির মোল্লা বলেন, রমজানে অন্য মাসের তিনগুণ আয় হয় রাত-দিন কাজ করলে। রমজানে কাজ না করতে পারলে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে।সরকারি সাধারণ ছুটির যতদিন থাকবে ততোদিন দোকান বন্ধ থাকবে। বাড়ির মালিক ঘরভাড়া চাইতেছে, সংসার খরচ নিয়ে টেনশনে আছি। ঘরে টাকা নাই। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে অবরুদ্ধ বা লকডাউন করা না হলেও ২৬শে মার্চ থেকে কার্যত বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ শহর অবরুদ্ধ হয়ে আছে। ফার্মেসি আর নিত্যপণ্যের দোকান ছাড়া সব কিছু বন্ধ। মানুষকে ঘরে রাখতে চলছে নানা কার্যক্রম।পেশায় দর্জি মো মোস্তফা শেখ,জাকির হোসেন.রতন কাজী.সামছুল হক তালুকদার, জানান. প্রতিদিন ফুটপাতে বসেন। তৈরি করেন নিম্ন আয়ের মানুষের পোশাক। সেই আয় দিয়ে চলে তাঁর সংসার। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন তিনি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফুটপাতে বসেও মিলছে না কাজ। তাই ঝুঁকি নিয়ে এসেছিলাম। বেঁচে থাকলে খেতে হবে। কে দেবে টাকা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর