মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
আলমডাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানের ভাষনের ৫০ বছর পালন উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্প মাল্য অর্পন তালা’র ৬৭জন নৌকা প্রতিক প্রত্যাশীর ১১জনই খেশরা ইউনিয়নের খাউলিয়ায় আলহাজ্ব মাস্টার সাইদুর রহমান কে নৌকার মাঝি হিসাবে চায় দলীয় নেতাকর্মীরা নারী দিবসের প্রাক্কালে আলমডাঙ্গা গোবিন্দপুরে এক বোনের জমি ,আরেক বোন জবর দখলের চেষ্টা ‘স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতি ও আমরা’লেখক আলমডাঙ্গায় ২ বেকারিতে ২৯ হাজার টাকা জরিমানা জীবননগরে পাট চাষিদের এক দিনের প্রশিক্ষণ জমি নিয়ে দুই ছেলের মারামারি দেখে বাবার মৃত্যু ফলোআপ: ছোট্ট শিশু কোলে নিয়ে ভাইরাল ইউএনও দিলারা ছদ্মনামে মোবাইলে প্রেম, ডেকে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

করোনায় ভাঙল সালেহ- রুহুলের সোনালি স্বপ্ন

Reporter Name / ৯৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিএসসিতে অধ্যায়নরত সালেহ আহমেদ। বাড়ি বগুড়া সদরের কলোনিতে। অপরজন সিঙ্গাপুরফেরত যুবক রুহুল আমিন। বাড়ি বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার পালাহার গ্রামে। সালেহ আহমেদ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে লেখাপড়া করলেও কৃষিতেই তার আগ্রহ বেশি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউবে তাইওয়ানের গোল্ডেন ক্রাউন জাতের তরমুজ চাষ দেখে আগ্রহ বেড়ে যায় তার। শুরু হয় স্বপ্নযাত্রা।

২০১৮ সালের প্রথম দিকে ইউটিউবের মাধ্যমে পরিচয় হয় খায়রুল ইসলাম নামে চুয়াডাঙ্গার একটি অ্যাগ্রো ফার্মের ম্যানেজারের সাথে। তার সহযোগিতায় কোনোপ্রকার একাডেমিক প্রশিক্ষণ ছাড়াই চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ জেলার
বিভিন্ন এলাকার চাষিদের সাথে কথা বলে এবং ইউটিউবে চাষপদ্ধতি দেখে সিদ্ধান্ত নেন এই জাতের তরমুজ চাষের। এ বছরের প্রথম দিকে সহকর্মী রুহুল আমিনকে সাথে নিয়ে তার গ্রামের বাড়ি শাজাহানপুর উপজেলার গোহাইল
ইউনিয়নের পালাহার গ্রামে ৫ বিঘা জমি পত্তন নিয়ে একরকম ঝুঁকি নিয়েই পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করেন গোল্ডেন ক্রাউন ও ব্ল্যাকবস জাতের তরমুজ চাষ।
ব্ল্যাকবস (কালো) জাতের তরমুজ সচরাচর বাজারে দেখা গেলেও গোল্ডেন ক্রাউন (সোনালি) জাতের তরমুজ উত্তরাঞ্চলের বগুড়ায় এই প্রথম চাষাবাদ শুরু করেন
সালেহ ও রুহুল। দেশীয় জাতের তরমুজ এবং এই বিদেশি জাতের তরমুজ চাষপদ্ধতি সম্পুর্ণ আলাদা। বীজতলা থেকে শুরু করে চারা রোপণ এবং পরিচর্যা সবই আধুনিক পদ্ধতিতে। দেশি জাতের তরমুজ মাটিতে উৎপাদন হয় আর
এই বিদেশি জাতের তরমুজ মাচায়। এর উৎপাদনে শ্রম বেশি খরচ বেশি আবার মুনাফাও বেশি। অন্যান্য জাতের তুলনায় এই জাতের তরমুজ স্বাদ ও মিষ্টিও বেশি। ৬০ থেকে ৭০ দিনের এই পরিশ্রমের ফসল যখন মাচায় মাচায় পরিপূর্ণ, সফলতার হাতছানি যখন সালেহ ও রুহুলের চোখে মুখে ঠিক তখনই করোনার করাল গ্রাসে ভেঙে যেতে বসেছে তাদের এই সোনালি স্বপ্ন। মহামারির এই দুর্যোগময় মুহূর্তে বিপণনের অভাবে মাচা থেকেই খসে পড়ার আশঙ্কায় তাদের একেকটা সোনালি স্বপ্ন। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার সালেহ আহমেদ জানান, কৃষিতেই
তার আগ্রহ। সেখান থেকেই তিনি কোনোপ্রকার প্রশিক্ষণ ছাড়াই ঝুঁকি নিয়ে তাইওয়ানের গোল্ডেন ক্রাউন ও ব্ল্যাকবস জাতের তরমুজ চাষাবাদ শুরু করেছেন এবং সফলতাও পেয়েছেন। কিন্তু করোনার কারণে বিপণনের অভাবে একদিকে যেমন অর্ধেকেরও বেশি মুনাফার ক্ষতি অপরদিকে মাচাতেই ফসল নষ্ট হয়ে
যাওয়ার আশঙ্কা করছেন তিনি। শাজাহানপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নূর এ ইলাহী জানান, এ জাতের তরমুজ চাষ উত্তরাঞ্চলের মধ্যে বগুড়ায় এ প্রথম। যেহেতু জাতটা নতুন তাই বহুল ব্যবহার না থাকায় প্র্যাকটিসও কম। তবে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে পরিচর্যা ও সঠিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ করতে পারলে উৎপাদন ভালো হবে। পাশাপাশি বিপণনের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করতে পারলে কৃষকেরা অধিক লাভবান হবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর