রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:১৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত জীবননগর থানা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ১ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২ মাদক, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজ চক্র নির্মূলে চলছে সাঁড়াশি অভিযান সিরাজগঞ্জ থানা কর্তৃক অভিযানে ৯ কেজি গাঁজা উদ্ধার, ১টি মোটরসাইকেল ও ২টি মোবাইল ফোন জব্দ সহ ২জন আসামি গ্রেপ্তার সিরাজদিখান ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় ক্রিকেট পোকা অনলাইন ক্লাব চ্যাম্পিয়ান পেঁপে চাষে চাষে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন করোনা মহামারিতে হাঁস পালনে ভাগ্য ফিরেছে বেকারি ব্যবসায়ী অনোকের ‘মুক্তিযুদ্ধ ও আমাদের নাগরিক সভ্যতা আজ কোথায়?’ আলমডাঙ্গা মোহনা বন্ধু সমিতির আয়োজনে বার্ষিক সাধারণ সভা জাকজমকের সহিত অনুষ্ঠিত শিশু নির্যাতনে চিকিৎসক রবিন ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

করোনা সংকটে বিপাকে চুয়াডাঙ্গার ফুলচাষীরা

Reporter Name / ১২৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:১৪ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ফুলচাষ করে বিপাকে পড়েছেন চুয়াডাঙ্গার ফুলচাষীরা। শ শ একর জমির ফুল জমিতে নস্ট হয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন চুয়াডাঙ্গার ফুলচাষীরা। বড় ধরনের লোকসান গুনতে হবে তাদের। এমনকি বেশিরভাগ ফুলচাষীর হাতে নতুন করে চাষাবাদ করার টাকাও থাকবে না। চুয়াডাঙ্গার ফুলচাষীদের দাবি, ফুলচাষিদের বাঁচিয়ে
রাখার স্বার্থে আর্থিক অনুদান দিতে হবে। চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলায় ৬৩ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরণের ফুলের আবাদ হয়েছে। বিভিন্ন মৌসুমে বিক্রির উদ্দেশ্যে ফুলচাষীরা ফুলের আবাদ করে থাকে।
এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ফুল বিক্রি করার পথ তাদের হাতে নেই। বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা হওয়ায় কৃষকরা তাদের ফুল বিক্রি করতে পারছেন না। ফুলচাষী শাহীন আলী জানান, চুয়াডাঙ্গা জেলার বেশিরভাগ ফুল ঢাকায় পাঠানো হয়। এ বছর সেই রাস্তাও বন্ধ। যানবাহন চলাচল বন্ধ এবং চাহিদা না থাকায় ফুল ঢাকাতে পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। কৃষিপণ্য হিসেবে কোনোভাবে ঢাকায় ফুল পাঠানো গেলেও ক্রেতা পাওয়া যাবে না বলে মনে করছেন ফুলচাষীরা।
চুয়াডাঙ্গার কেদারগঞ্জ গ্রামের ফুলচাষী আলম আলী জানান, একের পর এক লোকসান দিতে দিতে ফুলচাষীদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। নতুন করে চাষ করার মতো টাকা-পয়সাও কৃষকদের হাতে নেই। চুয়াডাঙ্গার ফুলচাষীদের পড়তে হবে বড় ধরণের বিপর্যয়ে। চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ
পরিচালক সুফি মোঃ রফিকুজ্জামান বলেন, এসময় রজনীগন্ধ্যা ও গাঁদা ফুল বেশি বিক্রি হয়। চুয়াডাঙ্গার বেশিরভাগ কৃষক এই দুটি ফুলের চাষ করেছেন। এছাড়াও গোলাপ এবং অন্যান্য আরো কিছু ফুলচাষ আছে। ফুল কৃষিপণ্য। কৃষিপণ্য পরিবহনে বাধা নেই। কিন্তু সমস্যা হলো এবারের নববর্ষে ফুল বিক্রি হবে না বললেই চলে। কৃষকের জন্য অবশ্যই তা ক্ষতির কারণ হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর