রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ১১:৪২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
কার্পাসডাঙ্গা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ,আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান কেক কাটার মধ্য দিয়ে ৭ মার্চ ২০২১ আনন্দ উদযাপন করেছেন চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম রাণীনগর থানা পুলিশের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ দিবস উদযাপন রাণীনগরে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে উদযাপন করা হলো ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষন দিবস কেক কাটার মধ্য দিয়ে ৭ মার্চ ২০২১ আনন্দ উদযাপন করেছে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ শৈলকুপায় সাড়ম্ব‌রে ঐ‌তিহা‌সিক ৭ই মার্চ পা‌লিত জয়রামপুরে চৌধুরীপাড়ার শফিকুল ইসলামকে অর্থ সহায়তা করেছেন দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা রহমান দিনব্যাপি নানান কর্মসূচীর মাধ্যমে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ ২০২১ জাতীয় দিবস উদযাপন করলো চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ দামুড়হুদার জয়রামপুরে অবৈধভাবে ফসলী জমি কেটে মাটি উত্তোলনের অপরাধে নজরুল ইসলামকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষ্যে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে সামনে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন

মাগুরায় দরিদ্রদের কার্ড দিয়ে চাল নেন ইউপি সদস্য

Reporter Name / ১১৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ১১:৪২ অপরাহ্ন

মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধিঃ মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার নহাটা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য কাঞ্চন দরিদ্রদের নামের কার্ড দিয়ে নিজেই ৩ বছর ধরে চাল
নিতেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কার্ড হস্তান্তর না করেই খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্পমূল্যের এ চাল তিনি উত্তোলন করেছেন বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ করেন নহাটা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সম্প্রতি কার্ড পাওয়া ১১ জন নারী-পুরুষ। দরিদ্রদের কার্ড দিয়ে চাল তুলে নেয়ার অভিযোগের ব্যাপারে নহাটা ইউপি চেয়ারম্যান আলী মিয়ার বলেন, আমি উপজেলার নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে কথা বলে মেম্বারের পক্ষ
থেকে ক্ষমা চেয়েছি। সম্প্রতি কার্ড পাওয়া রোজিনা ও রোকেয়াসহ কয়েকজন জানান, করোনা পরিস্থিতিতে প্রশাসনের কঠোরতায় চলতি মাসের শুরুর দিকে নহাটা ইউপি সদস্য কাঞ্চন তার ওয়ার্ডের কার্ডধারীদের বাড়ি বাড়ি এসে কার্ডগুলো হস্তান্তর করেন। কার্ডগুলোর মাধ্যমে ১৪-১৫ বার চাল উত্তোলন করা হয়েছে দেখে কার্ড নিতে না চাইলে তিনি জোরপূর্বক কার্ডগুলো দিয়ে যান। এ নিয়ে
উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে যাতে অবহিত না করা হয় তার জন্যও তিনি বিভিন্ন হুমকি দেন। ভুক্তভোগীরা আরও জানান, কার্ডে জাল স্বাক্ষর ও টিপসই দিয়ে
ইউপি সদস্য কাঞ্চন ২০১৬ সাল থেকে চাল উত্তোলন করে আসছিলেন। তাছাড়া এর বাইরে আরও যাদের কার্ড দিয়েছেন তাদের অধিকাংশ ভয়ে মুখ খুলতে পারছেনা বলেও তারা জানান। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য কাঞ্চন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, গ্রাম্য দলাদলির কারণে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে
তারা এ অভিযোগ সাজিয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মিজানুর রহমান বলেন, তদন্তপূর্বক সংশ্লিষ্ট ডিলার ও ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর