শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

গলাব্যথায় আক্রান্ত অবস্থায় নৌসেনার মৃত্যু রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন

Reporter Name / ২৮১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর মারা যাওয়া নৌসেনা নাজমুল হকের লাশ বাদ আছর নিজ গ্রাম আলমডাঙ্গার ফরিদপুরে দাফন করা হয়েছে।বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি টিম গার্ড অব অনার প্রদান করে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় লাশ দাফন করে। যশোর সেনানিবাসের ক্যাপ্টেন মাহিন,সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মোহাম্মদ আলী ও নৌবাহিনীর সাব লেপ্টেন্যান্ট রুহানের নেতৃত্বে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। সর্দি-জ্বর-গলাব্যথায় আক্রান্ত হয়ে নৌবাহিনীর এ সদস্য কুষ্টিয়ায় জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হলে বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

জানা যায়, নাজমুল হক চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার ফরিদপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে। সম্প্রতি অসুস্থ হয়ে তিনি মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি ইউপির কোলা গ্রামের বাবুপাড়ায় শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান করছিলেন। তার মৃত্যুর খবরে বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে শ্বশুরবাড়িটি লকডাউন ঘোষণা
করে লাল পতাকা টাঙিয়ে দেয় মেহেরপুর সদর থানা পুলিশ। এরপর এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অন্যদিকে, লাশ ফরিদপুর গ্রামের বাড়িতে পৌঁছলে সেখানেও
থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল। লাশ দাফনের সময় গ্রামের অনেকেই অংশ নেননি করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে। মৃত নাজমুল হকের প্রতিবেশিরা
জানান, নাজমুল হক সর্দি-জ্বর-গলাব্যথায় আক্রান্ত ছিলেন বলে এলাকার অনেকেই জানে। তাদের ধারণা, তার মৃত্যু করোনা ভাইরাস সংক্রমণে হয়ে থাকতে পারে। ফরিদপুর গ্রামবাসি ও মৃতের পরিবার জানিয়েছেন, নাজমুল দীর্ঘদিন ধরে লিভারের রোগে ভুগছিলেন। আড়াই বছর আগে তিনি জাতিসংঘের মিশনে বিদেশ
গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে লিভারজনিত রোগ প্রকট হলে ৩ বছরের স্থলে ১ বছরের পর তাকে দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। দেশে ফিরে গত দেড় বছর চিকিসাধীন ছিলেন বিভিন্ন সময়। আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার হাদী জিয়াউদ্দীন আহম্মেদ সাঈদ জানান, অসুস্থতার পর তিনি মেহেরপুর শ্বশুরবাড়ি উঠেছিলেন। বেশি অসুস্থ হলে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসক তাকে আলসারের চিকিৎসা
দিয়েছিলেন। এই মৃত্যুর সাথে করোনা ভাইরাসের কোন সম্পর্ক নেই। ফরিদপুর গ্রামের অধিকাংশ মানুষের ধারণা, লিভারের অসুখে নাজমুল হকের মৃত্য ঘটেছে। তারপরও মৃতের বাড়ির ভেতর কাউকে প্রবেশ করতে দেখা যায় নি। অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের মনে রয়েছে করোনা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর